ত্বকের ধরন এবং ত্বকের অবস্থা

ত্বকের ধরন এবং ত্বকের অবস্থা

ত্বকের ধরন এবং ত্বকের অবস্থা

ত্বকের ধরন এবং ত্বকের অবস্থা:

আমাদের ত্বকের ধরন জানা খুব প্রয়োজন। যদি ত্বকের ধরন সম্পর্কে আমরা না জানি তাহলে ভুল প্রোডাক্ট ব্যবহার করবো যার কারণে অনেক ধরনের সমস্যা আমাদের ত্বকে দেখা দিবে যেমন: পিম্পল, ব্লাকহেড, হোয়াইটহেড ব্রনের সমস্যা।

সাধারণত আমাদের ত্বক টাইপ ৪ ধরনের

  • স্বাভাবিক ত্বক ( Normal skin) 
  • তৈলাক্ত ত্বক(Oily skin)
  • শুষ্ক ত্বক(Dry skin)
  • সমন্বয় ত্বক(Combination skin)

স্বাভাবিক ত্বক (Normal skin)

স্বাভাবিক ত্বক হচ্ছে খুব তৈলাক্ত না খুব শুষ্কও না।T-জোন (কপাল, নাক এবং নাকের দুই পাশ) একটু তৈলাক্ত হতে পারে।স্বাভাবিক ত্বকে  একটা মসৃণ টেক্সচার থাকে এবং খুবই সুক্ষ্ম ছিদ্র(Pore) থাকে।

তৈলাক্ত ত্বক(Oily skin)

মুখে যেকোনো স্থানে তৈলাক্তভাব থাকবে। চকচকে(Shin) ভাব এবং দৃশ্যমান ছিদ্র(Pore)দেখা যাবে

শুষ্ক ত্বক(Dry skin)

শুষ্ক ত্বক অনেকটা রুক্ষ এবং নিস্তেজ থাকে।শুষ্ক ত্বকের কারণে খুব তাড়াতাড়ি বয়সের ছাপ(Wrinkles) পরে যায়।এই ত্বকের স্থিতিস্থাপকতা কম

সমন্বয় ত্বক(Combination skin)

 সমন্বয় ত্বকে T-জোন এরিয়া(কপাল, নাক এবং নাকের দুই পাশ)তৈলাক্ত থাকে এবং  U-জোন এরিয়া(গাল) স্বাভাবিক অবস্থায় থাকে।

ত্বকের অবস্থা (Skin Condition) সাধারণত তিন প্রকারের হয়ে থাকে ।যেমন:

1.Skin Ageing:

25 বছর বয়স থেকে সাধারণত ত্বকে  বয়সের ছাপ স্পষ্ট হয়ে উঠতে শুরু করে। সূক্ষ্ম লাইন  এবং wrinkles দিয়ে যা শুরু হয় ।

বয়সের ছাপ  সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক এবং এটা  পরিবর্তন করা যাবে না। তবুও, এমন অনেক কারণ রয়েছে যা ত্বকে বয়সের ছাপের কারণ হতে পারে।জীবনধারণ এবং ত্বকের যত্নের সামগ্রিক পদ্ধতিতে ত্বকে বয়সের ছাপ বৃদ্ধির দৃশ্যমান লক্ষণগুলি কমাতে এবং প্রতিরোধ করতে সাহায্য করতে পারে।

2.Skin Colour:

মানব ত্বকের রং গাঢ়তম বাদামী থেকে হালকা রঙের বিভিন্ন বর্ণের মধ্যে রয়েছে। একজন ব্যক্তির চামড়া pigmentation,জেনেটিক্স ফলাফল, ব্যক্তির পিতামাতার জেনেটিক রং, এবং সূর্য এক্সপোজার উপর নির্ভর করে।

বিভিন্ন মানুষের প্রকৃত ত্বকের রঙ অনেক পদার্থ দ্বারা প্রভাবিত হয়, যদিও একক সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ পদার্থ মেলানিন। মেলানিন, মেলানোসাইটস নামে পরিচিত যা ত্বকের মধ্যে উত্পন্ন হয় এবং এটি গাঢ়-চামড়া মানুষের ত্বকের রঙের প্রধান নিয়ামক।

3.Skin Sensitivity:

সংবেদনশীল ত্বক যা বিভিন্ন কারণে সহজেই জ্বালানীযুক্ত হয়, যা সাধারণত Skin Care products,উচ্চ এবং নিম্ন তাপমাত্রার পার্থক্যের কারণে হয়ে থাকে। কিছু মানুষের জন্য, সংবেদনশীল ত্বক একটি স্থায়ী অবস্থা, অন্যদের জন্য সংবেদনশীলতা কিছু অভ্যন্তরীণ এবং বহিরাগত কারণ দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়।  সূর্য, প্রসাধনী এবং cleansers  এর কিছু উপাদান দ্বারা লক্ষণ বাড়িয়ে তোলে।

এখন কথা হচ্ছে আমরা ত্বকের ধরন সম্পর্কে জানলাম কিন্তু বুঝবো কি করে আমার কি ত্বক। কারন ত্বকের ধরন সম্পর্কে না জেনে আমরা কোনো product ব্যবহার করলে সেইটা আমাদের ত্বকে বিপরীতপ্রতিক্রিয়া দেখাবে। ত্বকের ধরন নির্ধারণ করার কিছু কৌশল নিম্মরুপ:

  • প্রথমে ভালো একটা cleanser দিয়ে মুখ ভালোভাবে পরিষ্কার করতে হবে 
  •  তারপর ত্বক ভালোভাবে মুছে মুখে কোনো product ব্যবহার না করা   
  • ১/২ ঘন্টা পর আপনার ত্বকের ধরন প্রকাশ পাবে।
  • যদি আপনার ত্বক খুবই মসৃণ টেক্সচারে থাকে এবং খুব তৈলাক্ত না খুব শুষ্কও না হয় তাহলে আপনার ত্বক স্বাভাবিক ত্বক (Normal Skin)
  • যদি আপনার ত্বক খুব তৈলাক্ত থাকে মুখের যে কোনো স্থানে স্পর্শ করলে তেল অনুভব হয় তাহলে সেটা  তৈলাক্ত ত্বক(Oily Skin)
  • যদি আপনার ত্বকে টানটান অনুভব করেন এবং সামান্য তৈল নেই তাহলে আপনার ত্বক শুষ্ক ত্বক(Dry Skin)
  • যদি আপনার ত্বক শুধু T-জোন এরিয়াতে(কপাল, নাক এবং নাকের দুই পাশ ) তৈলাক্ত থাকে এবং  U-জোন এরিয়া(গাল) স্বাভাবিক অবস্থায় থাকে তাহলে আপনার ত্বক  সমন্বয় ত্বক(Combination skin)

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *